Search

SPD (Sensory processing disorder)

ALL Parent and Educator should know about SPD (Sensory processing disorder), writing will be continue .......

সেন্সরি কি : সেন্সরি হলো আমাদের সেন্স অর্থাৎ আমাদের পাঁচটি ইন্দ্রিয়: 1. দেখা হলো ভিজ্যুয়াল সিস্টেম 2. শোনা হলো হিয়ারিং সিস্টেম 3. টেস্ট বা গস্ট্যাটরি সিস্টেম 4. স্মেল বা ওলফ্যাক্টরি সিস্টেম এবং 5. টাচ বা ট্যাক্টিল সিস্টেম। এছাড়া ও রয়েছে, 6) ভেস্টিবুলার সেন্স 7) ব্যালান্স রাখার ক্ষমতা হলো প্রোপ্রাইওসেপ্টিভ সেন্স

8)নিজের ভিতরকার উপলব্ধি বা ইন্টারসেপশন সেন্স।

#সেন্সরি প্রসেসিং কি?: সেন্সরি প্রসেসিং হলো আমরা পারিপার্শ্বিকতা থেকে এই ইন্দিয় গুলোর মাধ্যমে তথ্য নিয়ে থাকে এবং ব্রেন এই তথ্য গুলো সংযোগ করে। অনেক সময় তথ্য গুলো ব্রেইনে যাচ্ছে কিন্তু প্রক্রিয়া করে সঠিক কাজটি করতে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে । এই বাধাগ্রস্ত হওয়ার অনেকগুলো কারণ রয়েছে একটি হতে পারে সেন্সরি সিকিং, সেন্সরি এভোইডিং এবং আন্ডার-রেস্পনসিভ।

*সেন্সরি এভোইডিং (sensory avoiding): আপনার শিশুর কয়েকটি ভিন্ন ভিন্ন বিষয় এড়িয়ে চলাকে আপনি লক্ষ্য করলে দেখবেন যাকে হাইপার-রেসপন্সিবল ( hyper-responsive), অতি-প্রতিক্রিয়াশীল (over-responsive) বা হাইপারসিটিভিটি (hypersensitivity)। সেন্সরি এভোইডিং বা সংবেদনশীল আচরণগুলি এড়ানো শিশুরা সংবেদনশীল ইনপুটটির (sensory input) জন্য অতিরিক্ত সাড়া দেয়। সামান্যতম নড়াচড়া, স্পর্শ বা শব্দ আপনার শিশুকে একটি নেতিবাচক আচরণ করতে সাহায্য করে থাকে । এই ধরণের অতিরিক্ত সাড়া দেবার কারণে তাদের প্রতিক্রিয়া আমরা প্রায়ই তুলনামূলক ভাবে বেশি দেখতে পাই যেমন ধরুন তারা নির্দিষ্ট কিছু শব্দে কানে হাত দিবে বা চিৎকার করবে বা কোন কোন আওয়াজে আতংকিত হবে।

*শিশুর সেন্সরি সিকিং: শিশুর সেন্সরি সিকিং হলো, এই ধরণের শিশুরা শক্ত করে ধরে বা খুব জোরে ধরে যাতে করে তাদের শারীরিক অবস্থান এবং প্রেসার বুঝতে পারে আর হাইপো-প্রতিক্রিয়াশীল (hypo-responsive) বা হাইপোসেন্সিটিভিটি (hyposensitivity) হিসাবে সেন্সরি সিকিং বা সংবেদককে চিহ্নিত করা হয়ে থাকে। এর অর্থ কোনও শিশু যথেষ্ট সংবেদনশীল ইনপুট (sensory input) গ্রহণ করে না এবং শিশু কাজটি করার জন্য তার ক্ষমতাকে "সঠিক" স্তরে পৌঁছানোর জন্য প্রতিটি মুহূর্তে নিয়মিত এটির সন্ধান বা অনুসন্ধান করে চলে। এই আচরণগুলি তাদের প্রতিদিনকার কাজগুলোকে প্রভাবিত করে থাকে কারণ সঠিক পর্যায়ে উৎসাহ ( arousel ) না আসা পর্যন্ত তারা কোনও কাজে মনোনিবেশ করতে বা অংশ নিতে সক্ষম হয় না। যেমন: আপনার যদি খুব সিঙ্গারা খেতে ইচ্ছে হয় অথবা আপনার যদি রসগোল্লা খেতে ইচ্ছে হয় আর না খেতে পারেন তাহলে কেমন বোধ হয়। শিশুরা পড়ার টেবিলে দুলবে, অথবা কলমটি ঠেসে ধরে লিখবে যাতে কলমটির প্রেসারের জন্য কাগজ ছিড়ে যায়, অথবা কোন কিছু মুখে দিয়ে কামড়াবে, চুল বা মায়ের কানের লতি ধরবে। কোন কিছু বা আপনার হাত এমন করে ধরবে যে আপনি ব্যথ্যা পাবেন কিন্তু সে বুঝবে না কি কারণে আপনি ব্যথ্যা পাচ্ছেন।

*আন্ডার-রেস্পনসিভ: এই সেন্সরি গ্রহনের বা প্রকাশের একটি তৃতীয় বিভাগ আছে যা শিশু এড়িয়ে যেতে পারে এবং সেন্সরি সিকিং বা সংবেদনা সেন্স এড়ানোর মত মনে হতে পারে তবে এটি খুব আলাদা। আন্ডার-রেস্পনসিভ সেন্সরি সিস্টেম (under-responsive sensory system) এ শিশুরা সেন্সরি ইনপুট কম প্রতিক্রিয়া দেখা যায়। প্রতিক্রিয়া পেতে হলে অন্য শিশুর চেয়ে এই ধরণের শিশুর বেশি সংবেদনশীল বা সেন্সরি ইনপুট প্রয়োজন।

দেখতে তাদের "অলস" বা "ক্লান্ত" মনে হবে এবং তারা তাদের চারপাশে মনোযোগ দেবে না একই কাজ করতেই থাকবে অন্য কোনদিকে কোন লক্ষ্য থাকবে না। কে বাড়িতে আসলো বা কে চলে গেলো এই সব ধরনের কাজ থেকে এড়িয়ে থাকবে। যেমন: নাম ধরে অনেক বার ঢাকছেন কিন্তু উত্তর নিচ্ছে না। পরে গিয়ে হাত পায়ে ব্যথা পেলো কিন্তু আপনার শিশু জানবেই না যে সে ব্যথা পেয়েছে।

সেন্সরি সিকিং শিশুরা আন্ডারসেনসিটিভ অথবা হাইপোসেন্সিটিভিটি থাকে, তারা সেন্সরি স্টিমুলেশন/উদ্দীপনা বেশি খুঁজে বেড়ায়। অন্যদিকে সেন্সরি এভোইডিং হলো ওভারসেন্সিটিভ বা হ্যাপারসেন্সিটিভিটি, এই ধরনের শিশুরা আলো ও শব্দে অস্থির হয়ে ওঠে, এছাড়াও অনেক ধরনের সমস্যা হয়ে থাকে। কোন কোন শিশুর এই সব ধরনের সেন্সরি ইনপুট এ কম বেশি ব্যবধান থাকতে পারে আবার কোন কোন শিশুর একটি বা দুটি ক্ষেত্রে সমস্যা থাকবে, এটি শিশুর সম্পূর্ণ তার নিজস্ব ব্যক্তিগত চাহিদা কারণ প্রতিটি শিশু অন্য আরেকটি শিশু এমনকি আপনি মা অথবা আপনার থেকে ও আলাদা।

কোন কোন শিশুর শোনায় সে হাইপার সেনসিটিভিটি কিন্তু কোন আঠালো বস্তু ধরলে চিৎকার করে, দেখলে বা কান্নার আওয়াজ শুনলে মনে হয় কেউ তাকে কঠিনভাবে কিছু বলছে কিন্তু বিষয়টি তা নয়, শিশুটি ওই আঠালো বস্তুর স্পর্শের ফলে যে সেন্সরি ইনপুট পেয়েছে তা নিতে পারছে না। https://youtu.be/atpjq5oxi_A

TAKE CARE of you EVERYONE.




8 views0 comments